মায়ের মৃত্যুর ৪ দিনের মাথায় চলে গেলেন ছেলে ইরফান খানও!

বিনোদন ডেস্ক | আপডেট : ২৯ এপ্রিল, ২০২০ বুধবার ০৮:২৯ পিএম

মা হারানোর ৪ দিনের মাথায় মাত্র ৫৩ বছর বয়সে চির বিদায় নিলেন ভারতীয় অভিনেতা ইরফান খান। বুধবার (২৯ এপ্রিল) মুম্বাইয়ের কোকিলাবেন ধিরুবাই আম্বানি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

২০১৮ সালের মে মাসে নিওরোএন্ডোক্রাইন টিউমারে আক্রান্ত হওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডনে তিনি দীর্ঘ সময় ছিলেন। কয়েকমাস আগে চিকিৎসা শেষে লন্ডন থেকে মুম্বাইয়ে ফিরেছিলেন তিনি।

ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে স্বল্প বিরতিরপর এ বছর ‘অ্যাংরেজি মিডিয়াম’ ছবির মাধ্যমে বড় পর্দায় ফিরেছেন ইরফান। তবে এর প্রচারণা করতে পারেননি তিনি। তারই অভিনীত অভাবনীয় ব্যবসাসফল ছবি ‘হিন্দি মিডিয়াম’-এর সিক্যুয়েল হলো ‘অ্যাংরেজি মিডিয়াম’।

ছবিটি পরিচালনা করেছেন হোমি আদাজানিয়া। ইরফান খানের সাথে আরও অভিনয় করেছেন কারিনা কাপুর, রাধিকা মদন ও দীপক দোবরিয়াল।

এই শক্তিমান অভিনেতা সম্প্রতি আবেগঘন একটা লিখা লিখেছিলেন, যাতে তিনি আঁচ করতে পেরেছিলেন হয়তো তার চলে যাবার সময় হয়ে গেলো। একটি চলমান দ্রুতগতির ট্রেনে তিনি ঘুরছিলেন। স্বপ্ন, পরিকল্পনা, আকাঙ্ক্ষা ও লক্ষ্য নিয়ে তিনি ব্যস্ত। হঠাৎ টিকিট কালেক্টর তাঁর কাঁধে টোকা দিয়ে জানালেন, ‘আপনার গন্তব্য চলে এসেছে। অনুগ্রহ করে নামুন। ইরফান খান বলল, ‘না, না। আমার গন্তব্য আসেনি।’ টিকিট কালেক্টর বললেন, ‘না, এটাই। কখনও কখনও এমন হয়।’

ইরফান খান অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হলো ড্যানি বয়েলের ‘স্লামডগ মিলিয়নিয়ার’ (২০০৮), রন হাওয়ার্ডের ‘ইনফারনো’ (২০১৬) এবং অ্যাঙ লি পরিচালিত ‘লাইফ অব পাই’ (২০১২)।

তিনি বাংলাদেশের মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর পরিচালনায় ‘ডুব’ ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এর ইংরেজি নাম ‘নো বেড অব রোজেস’। এতে বাংলাদেশের কিংবদন্তি সাহিত্যিক ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের জীবনের ছায়া পাওয়া যায় তার জাভেদ চরিত্রে। এটি সহ-প্রযোজনা করেছিলেন ইরফান খান নিজেই।

২৫ এপ্রিল ইরফানের মা সাইদা বেগম মারা গেছেন রাজস্থানে। করোনাভাইরাসের কারণে ভারতজুড়েই লকডাউন। তাকে সামনে থেকে শেষবারের মতো দেখা হয়নি তার। ভিডিও কলের মাধ্যমে মাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে হয়েছে মাকে। মায়ের মৃত্যুর ৪ দিনের মাথা চলে গেলেন ইরফান খান।

৭ জানুয়ারি ১৯৬৭ জয়পুরের এক মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ইরফান। ১৯৮৪ সালে নয়া দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামায় (এনএসডি) ভর্তি হওয়ার মধ্য দিয়ে অভিনয় জগতে প্রবেশ তার।

স্ত্রী সুতপা সিকদার ও দুই সন্তান, বাবিল ও আয়ান খানকে রেখে চিরবিদায় নিলেন ভারতীয় চলচ্চিত্রের এই খ্যাতিমান অভিনেতা।

 

সিটিজিসান ডটকম/আরএইচ

Print This Post