৪২ লাখ টাকার ইয়াবার চালান অ্যাম্বুলেন্সে আসছিলো চট্টগ্রাম, আটকালো র‍্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট : ১৪ জুলাই, ২০২১ বুধবার ১২:৪০ এএম

রোগী সেজে অ্যাম্বুলেন্সে করে কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম আসছে ইয়াবার একটি বড় চালান।— এমন সংবাদের ভিত্তিতে চট্টগ্রামে চেকপোস্ট বসায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়নের (র‍্যাব-৭) একটি চৌকস দল। হঠাৎ একটি অ্যাম্বুলেন্সকে থামানোর সংকেত দিলে দাঁড়ায় চেকপোস্টে। কিন্তু কৌশলে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে চালকসহ দুই ব্যক্তি। র‍্যাব সদস্যরা তাদের ধাওয়া করে গ্রেফতার করলে শপিং ব্যাগ থেকে উদ্ধার করা হয় ৮ হাজার ৪৯০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট। যার আনুমানিক মূল্য ৪২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

সোমবার (১২ জুলাই) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাকলিয়া থানার মীর ফিলিং স্টেশন এলাকার রাজবাড়ি কনভেশন সেন্টারের সামনে থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন— কক্সবাজার জেলার পেকুয়া থানার পেকুয়ার চর এলাকার মৃত আবু তাহেরের পুত্র আব্দুল কাদের (৪০) এবং একই জেলার কুতুবদিয়া থানার উত্তর ধুরুম কুতুবদিয়া এলাকার মৃত নজির আহাম্মেদের পুত্র রমিজ আহম্মদ (৫৯)।

র‍্যাব জানায়, দীর্ঘদিন ধরে তারা কক্সবাজার জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে বিভিন্ন অভিনব কৌশলে চট্টগ্রামসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মাদক ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ৪২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) নূরুল আবছার বলেন, ‘আমরা গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারি যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী রোগী সেজে একটি অ্যাম্বুলেন্স যোগে বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য নিয়ে কক্সবাজার হতে চট্টগ্রামের দিকে আসছে। এরপর আমাদের বসানো চেকপোস্টে তল্লাশি চলাকালে একটি অ্যাম্বুলেন্স চেকপোস্টে থামালে ভেতরে থাকা দুই ব্যক্তি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের ধাওয়া করে আটক করা হয়। এরপর তাদের জিজ্ঞাবাদ করলে শপিং ব্যাগের মধ্যে ৮ হাজার ৪৯০ পিস থাকার কথা স্বীকার করে এবং আমরা ওই মাদক উদ্ধার করি। এর আনুমানিক মূল্য ৪২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।’

গ্রেফতারকৃত আসামি এবং উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাকলিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।

সিএস

Print This Post