বাঁশখালীর পুইঁছড়ি সড়কে ধুলোর রাজত্ব, উদাসীন জনপ্রতিনিধি

বাঁশখালী প্রতিনিধি | আপডেট : ৬ এপ্রিল, ২০২১ মঙ্গলবার ০১:৩০ পিএম

যেদিকেই চোখ যায় শুধু ধুলো আর ধুলো! চোখ মেলে হাঁটাচলাও যেন দায়। আর গাড়ি চললেই পুরো এলাকা ধুলোয় আচ্ছন্ন হয়ে যায়। বাঁশখালীর পুইছড়ি ইউনিয়নের পূর্ব পুইছড়ি বশিরা বারি স্টেশন সড়কের এমনই হাল।

এদিকে জনপ্রতিনিধিরা এ বিষয়ে উদাসীন। দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসী স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে বহুবার অভিযোগ করেও মেলেনি কোনো প্রতিকার।এ যেন ‘অরণ্যে রোদন’—যার ফলে ক্ষোভে ফুঁসছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শাহাদাত মার্কেট এলাকা থেকে বশিরা বারি স্টেশন পর্যন্ত সড়কটি খানাখন্দে ভরে গেছে। বালিবাহী ডাম্পার চলাচলের কারণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা। বালি বাহী ট্রাক-ডাম্পার চলাচল বন্ধ না করায় পরিবেশ দূষণ বেড়ে চলেছে পূর্ব পুইছড়িতে।

গত রবিবার (৪ এপ্রিল) স্থানীয়রা উপয়ান্তর না পেয়ে ধুলোবালিমুক্ত পরিবেশ এবং দ্রুত রাস্তার সংস্কার দাবিতে নাগরিক কমিটির ব্যানারে মানববন্ধনের আয়োজন করে।

এসময় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন একুশে ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক শামিম উল্লাহ আদিল, ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মোহাম্মদ আবদু শুক্কুর, আওয়ামী লীগ নেতা শামসুল আলম, ব্যবসায়ী জমির উদ্দিন, যুবলীগ নেতা ফজল কাদের, আহমদ মিয়া, পল্লী চিকিৎসক ওসমান গণি, কৃষক নেতা নুরুচ্ছবী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাঁশখালীতে পুঁইছড়ি ইউনিয়ন সবচেয়ে অবহেলিত। এই ইউনিয়নে স্বাধীনতার পরবর্তী সময় থেকে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। প্রতিটি সড়কের বেহাল দশা। ধুলোবালিযুক্ত রাস্তায় চলাফেরা করতে ভোগান্তির শেষ নেই। স্কুল, কলেজ ও মাদরাসা শিক্ষার্থীদের আসা-যাওয়া করতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

তাঁরা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি বিশেষ অনুরোধ- উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সাধারণ জনগণের কষ্ট লাঘবে ব্যবস্থা নিবেন। এ বিষয়ে বাঁশখালীর এমপি আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

স্থানীয় বাসিন্দা শামিম উল্লাহ আদিল ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘চেয়ারম্যান যায় আর আসে। কিন্তু রাস্তাটির কোন উন্নয়ন হয় না। আমরা কি দেশের বাইরে নাকি? কালের বিবর্তনে সারাদেশের আনাচে-কানাচে উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। কিন্তু আমরা পুঁইছড়িবাসী অবহেলিত রয়ে গেলাম।’

এ বিষয়ে জানতে পুঁইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুলতানুল গণী চৌধুরী প্রকাশ লেদু মিয়ার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি সংযোগ তোলেননি।

বেলাল উদ্দিন/আরএইচ/সিএস

Print This Post