‘নোংরা’ বলায় ট্রাম্পের ওপর ক্ষেপেছেন ভারতীয়রা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | আপডেট : ২৪ অক্টোবর, ২০২০ শনিবার ১১:০০ এএম

নির্বাচনী চূড়ান্ত বিতর্কে অংশ নিয়ে জলবায়ু ইস্যুতে কথা বলতে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতে বায়ুদূষণ নোংরা বলায় ক্ষেপেছেন ভারতীয়রা। ভারতের পাশাপাশি চীন এবং রাশিয়াকেও নোংরা বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন এই প্রেসিডেন্ট।

ট্রাম্পের এমন মন্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভারতীয়রা। নোংরা বলায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানানোরও আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

তবে অনেকেই একমত হয়েছেন যে, রাজধানী দিল্লির বায়ুদূষণ বিশ্বে অন্যতম। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নয়াদিল্লির বাতাসের মান গুরুতর আকার ধারণ করেছে। সেখানকার বাসিন্দারা দূষিত বায়ূর কারণে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যায় ভূগছেন বলেও অভিযোগ করেছেন।

ভারতে ভয়াবহ বায়ুদূষণের মৌসুম ফিরে এসেছে। দেশটির বাতাসে পিএম২.৫ এর মাত্রা বিপজ্জনক পর্যায়ে পৌঁছেছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে রাজধানীর বাতাসে এই দূষণের মাত্রা প্রতি ঘন মিটারে ১৮০ থেকে ৩০০ মাইক্রোগ্রাম পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে; যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিরাপদ মাত্রার সীমার চেয়ে ১২ গুণ বেশি।

বৈশ্বিক উষ্ণতা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি স্বাক্ষরিত হলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। প্রেসিডেন্সিয়াল শেষ বিতর্কে বৃহস্পতিবার জলবায়ু চুক্তির ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে ট্রাম্প বলেন, চীনের দিকে দেখুন, কী ধরনের নোংরা একটি দেশ। রাশিয়ার দিকে দেখুন। ভারতের দিকে দেখুন; সব নোংরা। তাদের বাতাস নোংরা।

ট্রাম্প বলেন, ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলার বাঁচানোর জন্যই আমি প্যারিস চুক্তি থেকে বেরিয়ে এসেছি। আমাদের সঙ্গে খুবই অন্যায় করা হয়েছে। দূষিত বায়ু নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্য চীনের ক্ষেত্রে চরম সত্য না হলেও ভারতের ক্ষেত্রে অসামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

প্রত্যেক বছরের নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাসে শীতকালে ভারতের উত্তরাঞ্চলের কিছু শহরে বাতাসে দূষণের মাত্রা চরম আকার ধারণ করে। এই সময় কৃষকরা তাদের জমির আবর্জনা দূর করতে আগুনে পুড়িয়ে ফেলে। এছাড়া যানবাহনের ধোঁয়া ও শিল্প দূষণ, উৎসবের আতশবাজি এবং বাতাসের কম গতির কারণে বাতাসে যে দূষণ তৈরি হয়; চিকিৎসকরা তাকে ‘বিষাক্ত গ্যাসের ভয়ঙ্কর ককটেল’ বলে অভিহিত করেন।

দেশটিতে বছরের পর বছর ধরে বায়ুদূষণ বৃদ্ধি পেলেও তা মোকাবিলায় খুব নগন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। ট্রাম্পের নোংরা বলে মন্তব্য করার পরপরই শুক্রবার সকালের দিকে টুইটারে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ট্রাম্পের ‘হাউডি! মোদি’ বৈঠকের শিরোনাম টুইটারে ট্রেন্ড হয়ে যায়।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের হোস্টনে হাউডি মোদি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকে প্রবাসী অন্তত ৫০ হাজার ভারতীয় অংশ নিয়েছিলেন। মোদির সম্মানে আয়োজিত ওই বৈঠককে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঐতিহাসিক বৈঠক বলে মন্তব্য করেছিলেন।

ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেসের জ্যেষ্ঠ নেতা কপিল সিবাল প্রশ্ন তুলেছেন, ভারতের বায়ু নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মন্তব্য কি উভয় দেশের নেতাদের ‘বন্ধুত্বের ফল’ এবং হাউডি! মোদির ফল?

তবে অনেকেই চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে মোদির ভালো বন্ধু মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারত সফরে আসায় বিশাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আয়োজিত জমকালো অনুষ্ঠানের দিকেও ইঙ্গিত করেছেন। ওই অনুষ্ঠানে ব্যাপক নাচ, গান ও জমকালো সংবর্ধনার ব্যবস্থা করা হয়।

সূত্র: বিবিসি।

সিএস

Print This Post