সীতাকুণ্ড মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র

৩ মাসে দু’বার ভিত্তিপ্রস্তর, এমপি দিদারের বিরুদ্ধে ফেসবুকে ক্ষোভ

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি | আপডেট : ২৪ জুন, ২০২০ বুধবার ১০:০০ এএম

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলা মুরাদপুর ফকিরহাট এলাকায় ‘সীতাকুণ্ড মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র’ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের তিন মাসের মাথায় আবারও নতুন করে ওই মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। অনেকেই এটিকে নোংরা রাজনীতি বলে মন্তব্য করেছেন।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) চট্রগ্রামের ৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. দিদারুল আলম মডেল মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এর আগে, গত ১৬ মার্চ প্রথম মডেল মসজিদের কাজের উদ্বোধন করেছিলেন সীতাকুণ্ড উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আল মামুন। ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ মসজিদ নির্মাণ করবে ‘দি ইন্ঞ্জিনিয়ার কন্সট্রাক্টশন লিমিটেড’। উপজেলা চেয়ারম্যান সাম্প্রতিক করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসার জন্য ঢাকায় অবস্থান করছেন। বতর্মানে তিনি সুস্থ্য আছেন বলে একটি সূত্র জানায়।

সংসদ সদস্য মো. দিদারুল আলমের মসজিদ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশের পোস্টগুলো হুবহু পাঠকের সামনে তুলে ধরা হলো—

জাহিদ হাসান নামে একজন তাঁর ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সীতাকুণ্ড উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী যুবলীগের বিপ্লবী সভাপতি আলহাজ্ব এস এম আল মামুন ভাইয়ের অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে চট্টগ্রামের ৪ আসনের এমপি আলহাজ্ব দিদারুল আলম মহোদয়ের নোংরা রাজনীতির তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই।’

‘সৌদি আরবের আদলে দৃষ্টিনন্দন পাঁচতলা বিশিষ্ট মডেল মসজিদগুলো ইসলামিক সাংস্কৃতিক দেশের প্রতিটি উপজেলায় নির্মিত হচ্ছে মডেল মসজিদটি। সীতাকুণ্ড উপজেলা মডেল মসজিদের জায়গাটি যাচাই-বাছাই, জমির মালিকদের পাওনা সহ যাবতীয় সকল কাজ সম্পন্ন করা ছাড়াও সার্বক্ষণিক দেখাশোনা করে আসছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এস আল মামুন ভাই। করোনা পরিস্থিতিতে মডেল মসজিদের নির্মাণ কাজ বর্তমানে বন্ধ। কিন্তু এমপি মহোদয় উক্ত মসজিদের কন্ট্রাকটার, ইসলামী ফাউন্ডেশনের সভাপতি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ সবাইকে বাদ দিয়ে নিজের টাকায় নেমপ্লেট বানিয়ে আজকে তিনি সেটি লাগিয়ে দেন। অথচ সেটি আরও একমাস আগে উপজেলা প্রশাসন ও পরিষদ উদ্বোধন করা হয়’—যোগ করেন জাহিদ হাসান।

‘এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন ও পরিষদ কেউ কিছুই জানেনা। রাজনীতিতে মামুন ভাইয়ের কাছে বারবার ধরাশায়ী এমপি মহোদয় বল প্রয়োগ করে রাজনীতি করতে চাচ্ছেন। আমরা ধিক্কার জানাই এমন নোংরা রাজনীতিকে।’— বলেন জাহিদ হাসান।

জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আল মামুন ব্যক্তিগত সহকারী মারুফ বলেন, ‘মাননীয় সাংসদ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের বিষয়টি আমি অবগত আছি। আমি যতটুকু জানি মসজিদটির নির্মাণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কাউকে না জানিয়ে তিনি (সংসদ সদস্য) এই কাজটি করেছেন। আমি যতটুকু জানি ফলকে প্রথমে ওনার নাম পরে উপজেলা চেয়ারম্যান ও তারপর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নাম ব্যবহার কথা থাকলেও তা তিনি করেননি। এটা দুঃখজনক।’

সিটিজিসান ডটকম/সিএস

Print This Post