বাঁশখালীর পুঁইছড়িতে নির্দেশ অমান্য করে চলছে রমরমা জুয়ার আসর

মোহাম্মদ বেলাল উদ্দিন, বাঁশখালী প্রতিনিধি | আপডেট : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২০ শুক্রবার ০২:৩০ পিএম

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি ইউনিয়নে জুয়াখেলা বন্ধ করতে মাইকিং করে গ্রামবাসীকে নির্দেশ দিয়েছিলেন সেখানকার ইউপি চেয়ারম্যান সুলতানুল গণী চৌধুরী লেদুমিয়া। এ নির্দেশ অমান্য করে পুঁইছড়ির সর্বতত্রে দিনে-রাতে চলছে রমরমা জুয়ার আসর। এতে করে জুয়াখেলার মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার পাশপাশি সর্বস্ব হারিয়ে পথে পথে ঘুরছেন এলাকার একশ্রেণীর যুবক ও কিশোর।

সরেজমিনে পুঁইছড়ির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের শাইয়ারপাড়া এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, রাসেলের চায়ের দোকান, নাগু সওদাগরের চায়ের দোকান, ডাকাতিয়া ঘোনার প্রতিটি চায়ের দোকানে চলছে জুয়ার আসর। এসব খেলা মধ্যে রয়েছে তাসখেলা, কেরাম ও আইপিএল জুয়াখেলা।

স্থানীয় সংবাদকর্মী সরওয়ার আলম চৌধুরী শামিম বলেন, ’আমার বাড়ির পাশে রাসেলের দোকানে দিনে-রাতে জুয়া খেলার আসর বসে। আমি রাসেলকে এসব অবৈধ কর্মকাণ্ড না করার জন্য বলা হলেও সে আমাকে জবাই করে পুলিশ দিয়ে জানাজা পড়ানোর হুমকি প্রদান করে। আমি এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুঁইছড়ি ৩ নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য কামাল হোছাইন পুতন বলেন,’আমি বিভিন্ন সময়ে চৌকিদার নিয়ে গেছি। আমি চৌকিদার নিয়ে হাজির হলে তারা পালিয়ে যায়। আমি ফিরে আসার পর তারা পুনরায় জুয়াখেলা শুরু করে।’

অপরদিকে পুঁইছড়ি জেলেপাড়ায় প্রতিদিন সন্ধায় মদ সেবনের আসর বসায় বলে তথ্য দিয়েছেন। প্রশাসন বিভিন্ন সময় ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে মদ তৈরীর সরঞ্জামাদি ধ্বংস ও মাদক সেবনকারীদের গ্রেপ্তার করলেও বন্ধ হচ্ছে না মদ সেবনের জুয়ার আসর।

এ বিষয়ে জানার জন্য পুঁইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সুলতানুল গণী চৌধুরীকে বেশ কয়েকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

সম্প্রতি স্থানীয়দের অভিযোগ পেয়ে পুঁইছড়ি ইউনিয়নের শাইয়ারপাড়া এলাকায় ফোর্স নিয়ে যান বাঁশখালী থানার এসআই লিটন চাকমা। তিনি বলেন,’আমি ওই এলাকায় গিয়েছি। এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলেছি। যে দোকানগুলোতে জুয়া খেলা চলে, সে দোকানগুলোর মালিকদের নোটিশ দিয়েছি। এরপরেও যদি জুয়াখেলা চলে, তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।’

সিএস