জিইসির ক্যান্ডিসহ ৮ রেস্টুরেন্ট জরিমানা গুণল দেড় লাখ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট : ২ ডিসেম্বর, ২০২০ বুধবার ১১:০০ পিএম

চট্টগ্রামের চকবাজার থানার জিইসি মোড়ের ক্যান্ডি রেস্টুরেন্টে চরম অস্বাস্থ্যকর ফ্রিজে খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণ, রান্না করা মাংস পলিথিন ব্যাগে সংরক্ষণ, ময়লা পাত্রে খাদ্য উপকরণ সংরক্ষণ এবং ময়লাযুক্ত উপকরণ ব্যবহার করায় ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই সঙ্গে সার্বিক পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে নির্দেশনাও দেন।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সহায়তায় পরিচালিত এ অভিযানে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা এ জরিমানা করেন।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন অধিদফতরের বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক মোহাম্মদ ফয়েজ উল্যাহ, সহকারী পরিচালক (মেট্রো) পাপীয়া সুলতানা লীজা ও জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান।

মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান জানান, অভিযানে ৮ প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর বিভিন্ন ধারায় ১ লাখ ৬৭ হাজার টাকা প্রশাসনিক জরিমানা করা হয়েছে।

এশিয়ান কাবাবকে খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণে ছাপানো নিউজপ্রিন্ট ব্যবহার ও কিচেনে নোংরা পানি জমে থাকায় ৬ হাজার টাকা জরিমানাসহ সতর্ক করা হয়।

অফটাইম স্ন্যাক্সকে উৎপাদন ও মেয়াদবিহীন পণ্য সংরক্ষণ করায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। দি ইয়াম ইয়াম স্টোরকে উৎপাদন ও মেয়াদবিহীন পণ্য সংরক্ষণ,  মেয়াদোত্তীর্ণ খাদ্যদ্রব্য সংরক্ষণ ও মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্যের মেয়াদ তুলে ফেলায়  ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে বর্ণিত পণ্য ধ্বংস করা হয়।

আকবরশাহ থানার ফয়’স লেকের লাকি হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টকে অননুমোদিত এনার্জি ড্রিংক সংরক্ষণ করায় ৮ হাজার টাকা জরিমানাসহ বর্ণিত এনার্জি ড্রিংক ধ্বংস করা হয়। মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করে ভোক্তাদের বেশি দামে খাদ্যপণ্য বিক্রি করায় ফ্রেশ ফুড কর্নারকে ৮ হাজার টাকা, গোল্ড হিলকে ১০ হাজার টাকা ও আশা রেস্টুরেন্টকে ১০ হাজার টাকা জরিমানাসহ সতর্ক করা হয়।

জনস্বার্থে এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানান মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান।

সিএস