ছেলের বটির কোপে মৃত্যু শয্যায় বাবা : লাশ ঘরে ছেলে

বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:০১ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : জায়গা সম্পত্তির বিরোধে ঝগড়া এক পর্যায়ে বাবাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে ছেলে। সেই বাবা এখন মৃত্যুর পথযাত্রী। তবে বাবার মৃত্যুর আগেই পুলিশ সেই ছেলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বব্ধঘর থেকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের মর্গে পাঠিছে। শুক্রবার সাপ্তাহিক সরকারি ছুটি থাকায় আগামী শনিবার তার লাশের ময়নাতদন্ত হতে পারে।

মৃত চন্দন চৌধুরী আনোয়ারা উপজেলার গুয়াপঞ্চক গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবা চমেক ২৮নং ওয়ার্ডে মৃত্যু প্রহরগোনা বৃদ্ধ মিন্টু চৌধুরী (৭০)।

পটিয়া থানার সন্ধ্যার দায়িত্বরত কর্মকর্তা (এএসআই) সোহাগ আত্মহত্যায় চন্দন চৌধুরীর মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে পটিয়া পৌর সদরের ব্রহ্মণপাড়া এলাকায় রাইবার বাড়িতে বেড়াতে এসে আত্মহত্যা করেছে চন্দন চৌধুরী নামের এক ব্যক্তি। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

তবে কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন সেটি এই মুহুর্তে বলা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সুজন চৌধুরী বাদি হয়ে থানায় অপমৃত্যুর মামলা করেছেন।

লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে ময়নাতদন্তের জন্য চমেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহতের ছোট ভাই সুজন চৌধুরী বলেন, ‘আমার ভাই চন্দন চৌধুরী পারিবারিক জায়গা সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে আমার বাবা মনটু চৌধুরীর সঙ্গে কয়েকদিন আগে মারামারি করে। ওইদিন মারামারির একপর্যায়ে সে বাবাকে বটি দিয়ে মাথায় কোপ দেয়। এতে বাবা গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। বাবা এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।’ ##

Leave a Reply