বঙ্গবন্ধুকে ভালবেসে নয়, তারা এজিদের দল

অনলাইন | সিটিজিসান.কম


চট্টগ্রাম | ৩০ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার ০৩:৪০ পিএম |

ক’দিন আগে কোটা বিরোধীরা আন্দোলন করলো, আন্দোলনের শুরুতেই তারা টিশার্টের বুকে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি লাগিয়েছিল! মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি লাগিয়ে আন্দোলন করছিল সরকার!

মোটামুটি আন্দোলন যখন জমে গেলো তখন টিশার্ট থেকে বঙ্গবন্ধুর ছবি গায়েব, শেখ হাসিনা বন্দনা দূরে থাক, শেখ হাসিনা ও তার সরকারকে যেভাবে পারছে খাটো করার চেষ্টা করছে। শেষ পর্যন্ত কোটা বিরোধী ছাত্র আন্দোলনকে শেখ হাসিনা ও সরকার বিরোধী আন্দোলন বানিয়েছে।

বর্তমানে কামাল, মনসুর, রব, মান্নারাও একই ফর্মুলা ট্রাই করতেছে, বর্তমান রাজনীতিতে তাদের কোন ভিত্তিই নেই, জনসম্পৃতা বা জনপ্রিয়তা তো শুন্যের কোটায়। তাই তারা বিএনপি ও অন্যান্য দলের সাথে জোট করার সময় বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধাদের কথা মুখে বললেও রাজনীতিতে একটু গেঁড়ে বসলেই সবই ছুড়ে ফেলে দিবে কোটা আন্দোলনকারীদের মত।

আমি বিশ্বাস করি, যে বঙ্গবন্ধুকে ভালবাসবে, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে থাকবে, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস করবে সে অন্তত জামায়াত ইসলামের সাথে একই প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা দূরে থাক, এক টেবিলে বসবেও নাহ।

এই কামাল, রব, মনসুর, মান্নাদের মধ্যে অনেকটা ইসলামি ইতিহাসের অন্যতম চরিত্র হজরত মোহাবিয়ার পুত্র এজিদকে দেখতে পাই বা এদের সাথে এজিদের দারুন মিল পাই।

এই এজিদ ক্ষমতার লোভে প্রিয় নবী হজরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর নাতী ইমাম হোসাইন সহ নবী মোহাম্মদের পুরো বংশকে শেষ করে দেয় বা হত্যা করে কিন্তু তাও এজিদ মুখে নবী বন্দনা জারি রাখেন, নির্মমভাবে হত্যাকরে মস্তক বর্শায় ঢুকিয়ে শহর প্রদক্ষিণ করে নবী নাতির, যে নাতি ছিলেন নবী মোহাম্মদের কলিজার টুকরা, মা ফাতেমা ও হজরত আলির সন্তান! নাতীকে হত্যা করলেও নানার গুণগান চলতে থাকে, শুধু ইমাম হোসেন নয়, ইমাম হাসান, হজরত আলি কে হত্যা করেও নবী গুণগান জারি ছিলো! সকল সাহাবী এবং নবী প্রেমীদের কবর ও স্মৃতিচিহ্ন ধংস করেও কিন্তু মূখে নবী বন্দনা জারি রাখে।

মুখে নবী বন্ধনা করলেও নবীর ইসলামিক খিলাপতি শাসনব্যবস্থা বাতিল করে রাজবংশীয় শাসনব্যবস্থা চালু করেন। নবী বন্দনা দিয়ে সব অপকর্ম জায়েজ করে নিয়েছে, নবী ও ইসলামের খেদমতেই নাকি এসব করেছেন!

আমাদের দেশেও পরিস্থিতি অনেকটা তাই, বঙ্গবন্ধুর গুণগান করছে কিন্তু উনার মেয়ের বিরোধীতা করছে, বঙ্গবন্ধুর গুণগান করতেছে কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে একই প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে, বঙ্গবন্ধুর গুণগান করতেছে অথচ বঙ্গবন্ধুর খুনি ও তাদের দোসরদের সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করছে, বঙ্গবন্ধুর গুণগান করছে কিন্তু বঙ্গবন্ধুর দলের বিরোধিতা করছে, বঙ্গবন্ধুর গুনগান করছে কিন্তু কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যার চেষ্টাকারীর নেতৃত্বে রাজনীতি করছে!! সবই নাকি বঙ্গবন্ধু প্রেম ও মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে করছে! একেমন বঙ্গবন্ধু প্রেম? এতো এজিদের উত্তরসূরি!

লেখক : রাসেদ চৌধুরী, সাবেক সদস্য, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

সিএস/সিএম/এসআইজে

Leave a Reply