পরীক্ষার হলে ছাত্রীর গায়ে রহস্যময় আগুন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, মো. আব্দুর রহিম | সিটিজিসান.কম

ফেনী | ০৬ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার ০৮:২০ পিএম |

ফেনী জেলার সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসার যৌন হয়রানির অভিযোগকারী ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে রহস্যময় আগুন লেগে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় পুড়ে গেছে। এতে শরীরের ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সূত্রে জানা গেছে।

মাদ্রাসা ও নুসরাতের পরিক্ষার হলের ছাত্রীরা জানায়, শনিবার (৬ মার্চ) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আলিম প্রথম পত্রের পরিক্ষা দিতে নুসরাত জাহান রাফি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসার উত্তর পাশে টিন শেড় আট নম্বর হল কেন্দ্রে আসে। পরিক্ষা শুরু হওয়ার ১০মিনিট আগে নুসরাতের হাতে থাকা পরিক্ষার অনুমতি পত্রের ফাইল টেবিলে রেখে তাড়াহুড়া করে বের হয়ে যায়। পরিক্ষার কেন্দ্র থেকে বের হয়ে নুসরাত জাহান রাফি মাদ্রাসার তিন-তলা ভবনের উপরের দিকে চলে যায়। ভবনে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর পর পরিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে রহস্যময় আগুন লেগে যায়। পরে সেখান মাদ্রাসার কর্তবরত পুলিশ ও দারোয়ানস হ সবাই ছাত্রীর গায়ে আগুন দেখে দ্রুত আগুন নিবাতে সক্ষম হয়।

এরপর দ্রুত ওই ছাত্রীকে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। সেখানে তার অবস্থা অবনতি হওয়া পরে তাকে ঢাকেম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানালেন; নুসরাতের পরিক্ষার হলের ছাত্রীরা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সোনাগাজী মডেল থানার (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, গত ২৭ তারিখ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ কতৃর্ক এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনা নিয়ে থানায় আসে নুসরাত জাহানের পরিবার। ওই সময় অভিযোগের ভিত্তিতে ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো. সিরাজুল ইসলাম থানায় নিয়ে আটক করি। পরে নুসরাত জাহান রাফির মা শিরিনা আক্তার ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন মামলা দায়ের করেন। পরে তাকে আমরা আদালতে প্রেরণ করি।

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, পরিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে যারাই এঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুন না কেন তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক পি কে এম এনামুল করিম উপ সচিব ফেনী (রাজস্ব) সোনাগাজী উপজেলার নির্বাহী অফিসার মো. সোহেল পারভেজ ও আইন শৃংখলা বাহিনীর বিভিন্ন কর্মকর্তাবৃন্দ।

সিএস/সিএম/এসআইজে