পতেঙ্গায় রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ

অনলাইন | সিটিজিসান.কম

চট্টগ্রাম | ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার ০৩:৪৫ পিএম|

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মালিকানাভুক্ত জায়গার ওপর এম, নাজিম উদ্দিন নামে গং পুলিশের সহযোগিতায় জোরপূবর্ক রাস্তা নিমার্ণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম মহানগরের পতেঙ্গা থানার মুসলিমাবাদ এলাকার শেখ আহম্মদ সওদাগরের বাড়ির পাশে এ ঘটনা ঘটে।

মামলা সুত্রে জানা যায়, জায়গাটির প্রকৃত মালিক আলী নুর (৫২)। পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া জায়গাটি উত্তর পতেঙ্গা মৌজা। খতিয়ান নম্বর ১১৪৭। ৬৭০ দাগের ৬ শতক জায়গার অন্তর্রভূক্ত। জায়গাটি পশ্চিম পাশে রয়েছে সিটি করপোরেশন রাস্তা। গত ২১ জানুয়ারি জায়াগার মালিক একটি মিস মামলা করলে বিষয়টি আমলে নিয়ে আদালত কর্তৃক নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ওই জায়গার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে চট্টগ্রাম অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

আলী নুর বলেন, ৩ বছর আগে এম নাজিম উদ্দিন সহ চারজন ব্যক্তি যৌথভাবে খায়ের আহম্মদ থেকে ৪ শতাংশ জায়গা কেনেন। কিন্তু স্থানে কোন রাস্তা চলাচলের জায়গা নেই। চারপাশে যে জায়গা রয়েছে সবগুলো মালিকানা জায়গা। ওই জায়গার ওপর রাস্তা না থাকার কারণে কমমূল্যে জায়গাটি কেনেছেন তারা। সরকারি রাস্তা তো আছেই।

থানা সুত্রে জানা গেছে, গত ৮ মাস আগে জায়গা সংক্রান্ত একটি অভিযোগের ভিত্তিতে পতেঙ্গা থানায় দুই পক্ষকে নিয়ে থানায় বৈঠক হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত উক্ত বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে না পারায় শেষে দুই পক্ষকে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ। ওইসময় বিষয়টি সুহারা করতে প্রথমে তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন পতেঙ্গা থানার এসআই মো. আমিনুল ইসলাম। এরপর আমিনুলের অনুপস্থিতে এটি তদন্ত করার দায়িত্ব পান এসআই সুমন দে। বর্তমানে এটি দায়িত্বে আছেন এসআই শামীম।

এর আগে, গত ২১ জানুয়ারি এম নাজিম উদ্দিনগং জোরপূর্বক জায়গা দখল করে রাস্তা নির্মাণের বিষয়ে মহানগর পুলিশ কমিশনার বরাবরে একটি অভিযোগ করেছেন নুর আলী। গত ২৭ জানুয়ারি সকাল ১০টার দিকে সেখানে প্রতিপক্ষরা ১০/১৫ লোকজন নিয়ে জায়গা দখল করতে যায়। এতে নুর আলীর স্ত্রী হোসনে আরা বেগম (৪৫) ও তার ভাইয়ের স্ত্রী গুল নাহার বেগম (৪০) তাদের বাঁধা প্রদান করলে ঘটনাস্থলে থাকা এসআই সুমন দে’র নেতৃত্বে তাদের মহিলাকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে থানায় নিয়ে মামলা দেয় পতেঙ্গা থানা পুলিশ।

আলী নুর আরো বলেন, এই জায়গা বিষয়ে প্রতিবাদ করায় আমার স্ত্রী ও আমার ভাইয়ের স্ত্রীকে অন্যায়ভাবে আটক করে মামলা দিয়ে জেলে পাঠায় পুলিশ। প্রতিনিয়ত আমাদেরকে এম নাজিম উদ্দিন নামে এক নেভী অফিসার হুমকি দিচ্ছেন। ক্ষমতা জোর দেখাচ্ছেন। রাস্তার নির্মাণের জায়গা না দিলে সবাইকে জেলের ভাত খাওয়ানো হবে বলে হুংকার দিচ্ছেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পর তারা নতুন রাস্তার কাজ এখনো বন্ধ হয়নি। পুলিশের সহযোগিতায় কাজ চলছে রাস্তার নিমার্ণের। এসআই শামীম ঘটনাস্থলে এসেই জোরপূবর্ক রাস্তার নির্মাণের কাজে সহযোগিতা করছেন। আমি এই অন্যায়ের সঠিক বিচার চাই।

জানতে চাইলে পতেঙ্গা মডেল থানার ওসি (তদন্ত) গাজী মুহাম্মদ ফয়জুল আজীম বলেন, সরকারি জায়গার ওপরে রাস্তা নির্মাণের কাজ চলছে। তবে এই জায়গাটি ওপর যদি আদালতের কোন নিষেধাজ্ঞা থাকে, তাহলে পুলিশ সহযোগিতা করবে।

সিএস/সিএম/এসআইজে