নির্বাচন কমিশনারকে স্বারকলিপি দিলেন নগর বিএনপি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | সিটিজিসান.কম

চট্টগ্রাম | ১৮ নভেম্বর ২০১৮, রবিবার, ০৬:৫০ পিএম |

তফসিল ঘোষণার পরও ধরপাকড় অব্যাহত ও চট্টগ্রামে সরকারি দলের নির্বাচনীয় আচরণবিধি ভঙ্গসহ বেশ কয়েকটি বিষয়ে অবহিত করে জেলা নির্বাচন কমিশনকে স্মারকলিপি দিয়েছে মহানগর বিএনপি।

রবিবার ১৮ নভেম্বর রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় জেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা মুনির হোসাইন খানের মাধ্যমে ইসিকে এই স্বারকলিপি দেয়া হয়।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, বিএনপি নেতাকর্মীদের জামিনে থাকাবস্থায় ও হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে কারাগার থেকে বের হয়ে আসার সময় জেল গেইট থেকে পুনরায় গ্রেপ্তার করছে পুলিশ। তফসিল ঘোষণার পর পুলিশের একপক্ষীয় আচরণ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

নির্বাচন কমিশন দেশে-বিদেশে একটি সুষ্ঠ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেওয়ার পুন: পুন: প্রতিশ্রুতির পর দেশের গণতন্ত্রের স্বার্থে বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশ গ্রহণের ঘোষণা দেয়। সেই লক্ষ্যে নির্বাচনকে একটি উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দলীয় নেতাকর্মীরা ও দেশের মানুষকে উজ্জ্বীবিত করার কাজ করছে। এ অবস্থায় পুলিশের হয়রানী ও গণহারে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের ঘটনা নির্বাচন কমিশনের কর্মকান্ডকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে। এছাড়া তফসিল ঘোষণার পরও আচরবিধি ভঙ্গ করে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ মহানগর-জেলায় বিভিন্নস্থানে সভাসমাবেশ করে চলেছে।

আরো বলা হয়েছে- নির্বাচন কমিশনের তফসিল ঘোষণার আগে-পরে গত দু’মাসে চট্টগ্রামের ১৫টি থানায় বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ১৪০টি গায়েবী মামলা দায়ের করা হয়। সম্প্রতি হাইকোর্ট থেকে জামিন নিতে যাওয়া মহানগর সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, মো. সামশুল হক, কামরুল ইসলাম, জাকির হোসেন, জিয়াউর রহমান জিয়া, জমির উদ্দিন নাহিদ সহ মহানগর বিএনপির শীর্ষ নেতাদেরকে ঢাকা থেকে ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

এছাড়া চট্টগ্রাম মহানগর-জেলায় বেশ কয়েকজন বিএনপির শীর্ষ নেতারা কারাগারে আছেন। যারা ইতোমধ্যে মনোয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। কারাগারে আটক থাকার কারণে তারা নির্বাচনী কর্মকান্ডে অংশ নিতে পারছেন না। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে অংশগ্রহণকারী ও আটককৃত সকল নেতাকর্মীর মুক্তি পাওয়া তাদের মৌলিক অধিকার।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুনির হোসেন খান এই প্রসঙ্গে বলেন, রবিবার দুপুরে মহানগর বিএনপির নেতৃবৃন্দ স্মারকলিপি প্রদান করেন নির্বাচন কমিশনারের বরাবরে। সেটা গ্রহণ করেছি। বিএনপির কিছু বক্তব্য আমি নোট করেছি। সব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনারকে জানানো করা হবে বলে জানান তিনি।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দিন, মহানগর বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সত্তার, অধ্যাপক নুরুল আলম রাজু, সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি প্রমুখ স্বারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন।

সিএস/সিএম/এসআইজে