কেএসআরএমের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগেও নির্বিকার পুলিশ ও রেল!

চট্টগ্রাম : ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে দেশের খ্যাতনামা শিল্পগ্রুপ পিএইচপি ফ্যামিলির জমি দখলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলেও কবির স্টিল রি-রোলিং মিলস (কেএসআরএম)’র বিরুদ্ধে পুলিশ ও রেল কর্তৃপক্ষ এখনও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে।

গত ৩১ মার্চ বাড়বকুণ্ডে রেলওয়ে থেকে ইজারা নেওয়া পিএইচপি জায়গার চুম্বক অংশ ভাড়াটে সন্ত্রাসী আনসার দিয়ে দখল করে নেয় কেএসআরএম। যেখানে কাঁটাতারের ঘেরায় বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে মরণফাঁদ তৈরির অভিযোগ উঠেছে কেএসআরএম’র বিরুদ্ধে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন এই প্রসঙ্গে জানান, পিএইচপির জায়গা দখল করে নেওয়া সংক্রান্ত একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে কমিটির রিপোর্ট পেলে শর্ত ভঙ্গকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিএইচপির অভিযোগ, গত ৩১ মার্চ শতাধিক ভাড়াটে সন্ত্রাসী ও আনসার সদস্য পিএইচপির জমি দখলের সময় আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে। গত ৩ এপ্রিল সেই কাঁটাতারের ঘেরায় বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে কেএসআরএম মৃত্যুফাঁদ তৈরি করেছে। এতে যে কোনো মুহূর্তে প্রাণহানি ঘটতে পারে বলে আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

পিএইচপি ফ্যামিলির মহাব্যবস্থাপক (এস্টেট) আমির হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমাদের জায়গা দখল করে কাঁটাতারের ঘেরা দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে কেএসআরএম। এতে পুরো এলাকা মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে।’

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন জানান, রেলের জায়গা ইজারা নিয়ে সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া সম্পূর্ণ অবৈধ। ইজারার শর্ত অনুযায়ী চলাচলের জায়গায় কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা যাবে না সেখানে বিদ্যুতের লাইন দিয়ে মরণফাঁদ তৈরি করা অপরাধ। -জাগো চট্টগ্রাম