সোমবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৯, ০৪:২২ এএম

নাঈম ইসলাম মুন্না, রাঙামাটি প্রতিনিধি : : রাঙামাটির লংগদু উপজেলার পাকুয়াখালীর ৩৫ কাঠুরিয়া হত্যার বিচার হয়নি দীর্ঘ ২২ বছরেও । পুনর্বাসিত হয়নি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। বর্বর এ হত্যাকান্ডের বিচার হবে কিনা তা নিয়ে স্বজনদের মনে দেখা দিয়েছে শঙ্কা।

অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের সংগঠিত হত্যার বিচার না হওয়ায় এখনো পাহাড়ে রক্ত ঝরছে।

পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের রাঙামাটি জেলা শাখার সভাপতি জাহাঙ্গীল আলম বলেন, দিবসটিতে শহীদ ৩৫ কাঠুরিয়ার গণকবর জিয়ারত, শোক র‌্যালি, দোয়া ও আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম সমঅধিকার আন্দোলন, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ, পার্বত্য যুবফ্রন্ট ও পার্বত্য বাঙালি ছাত্র ঐক্য পরিষদ, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ, পার্বত্য গণপরিষদ যৌথভাবে পাকুয়াখালী ট্র্যাজেডি দিবসটি পালন করবে।

এ ছাড়া পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানেও দিবস উপলক্ষে রয়েছে নানা কর্মসূচি। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ১৯৯৬ সালে ৯ সেপ্টেম্বর তৎকালীন শান্তি বাহিনী নামে বিচ্ছিন্নতাবাদী একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ লংগদু উপজেলার ৩৬ জন কাঠুরিয়াকে ব্যবসায়িক কাজে ডেকে নিয়ে যায় পাকুয়াখালীর গহিন অরণ্যে। জঙ্গলে পৌঁছানোর পর সন্ত্রাসীরা তাদের জিম্মি করে ফেলে। হাত-পা-চোখ বেঁধে নির্যাতন চালায়। সে সময় কাঠুরিয়াদের মধ্য থেকে ইউনুছ নামে একজন পালাতে সক্ষম হন। তিনি যৌথ বাহিনীকে বিষয়টি জানান।

একদিন পর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলের দিকে রওনা করেন সেনা সদস্যরা। তার আগেই সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা কাঠুরিয়াদের চোখ উপড়ে, হাত-পা কেটে নির্মম নির্যাতন করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

Leave a Reply