বেগম জিয়ার সমস্যা হাঁটুতে, সমস্যা হাঁটায়

অনলাইন ডেস্ক : কারাগারে বন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার হাঁটুতে সমস্যা ও বাতের কারণে তিনি ঠিক মতো হাঁটতে পারছেন না। তবে তার রক্তচাপ, রক্তে শর্করাও (ব্লাড সুগার) স্বাভাবিক রয়েছে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড পাওয়া বেগম খালেদা জিয়া ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী। এর মধ্যে অসুস্থতার কথা বলে তার মুক্তির পাশাপাশি চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও প্রয়োজনে বিদেশে চিকিৎসার কথা বলেছেন।

আর দুই নেতার এই বক্তব্যের পর বিএনপি নেত্রীর বিদেশ চলে যাওয়া নিয়ে বিএনপিতে চলছে নানা গুঞ্জন। বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা নানাভাবে জানতে চাইছেন আসলে কী ঘটতে যাচ্ছে। খালেদা জিয়া আসলেই বিদেশে যেতে চান কি না। চিকিৎসার জন্য হলেও বিএনপি নেত্রী দেশের বাইরে গেলে রাজনীতিতে এর অন্য মানে হতে পারে। যদিও বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অবশ্য কোনো গুঞ্জনে কান না দেয়ার অনুরোধ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘গুঞ্জন পরিবেশ নষ্ট করে।’

খালেদা জিয়ার শরীর কেমন, এ বিষয়ে জানতে কারাগারে একজন কারা কর্মকর্তা চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।

ওই কর্মকর্তা জানান, ঢাকার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন আবুল ফজল মো. সাহাবুদ্দিন গত বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে কারাগারে যান। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার শাহিন খান এবং কারাগারের চিকিৎসক মাহমুদুর রহমানও।

বিএনপি নেত্রীকে প্রায় ঘণ্টাখানেক পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন এই তিন চিকিৎসক। কেমন দেখেছেন জানতে চাইলে আবুল ফজল মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘ঢাকা সিভিল সার্জনের অফিসের অধীনে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার। সেই সূত্র ধরেই আমাদের অফিসের একজন মেডিকেল অফিসার এবং একজন কারাগারের চিকিৎসক নিয়ে খালেদা জিয়ার শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছি। তাঁর হাঁটুর সমস্যা রয়েছে। এই কারণেই তাঁর হাঁটতে কষ্ট হয়।’

‘এছাড়াও তাঁর গেঁটে বাত রয়েছে। আমি তার ব্লাড প্রেসার (রক্তচাপ) ব্লাড সুগারও (রক্তের শর্করা) পরীক্ষা করেছিলাম। সেগুলোর রিপোর্ট নরমাল আছে।’

বিএনপি নেত্রীর যে শারীরিক সমস্যা, তার চিকিৎসা দেশেই করা সম্ভব নাকি তাকে বিদেশে নিতে হবে-এমন প্রশ্নে ঢাকার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন বলেন, ‘আমরা কারাগারের কর্মকর্তাদের একটি প্রতিবেদন দিয়েছি। সেই প্রতিবেদন অনুযায়ী তারা পরবর্তী ব্যবস্থা নেবেন।’

তবে প্রতিবেদনে কী সুপারিশ করেছেন এমন প্রশ্নে অবশ্য কিছু জানাতে রাজি হননি এই চিকিৎসক। বলেন, ‘এটা কারাগারের ব্যাপারে। আমরা পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দিয়েছি। কিন্ত অফিসায়াল রুলস রয়েছে বোঝেনই তো।’

এ ব্যাপারে কারা কর্তৃপক্ষের বক্তব্য চেয়েও পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিয়ে জানতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেষ্ঠ্য জেল সুপার জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন কারাগারে খালেদা জিয়া সুস্থ আছেন। তবে তিনি কিছু ক্রনিক রোগে ভুগছেন। সুত্র- ঢাকা টাইমস