প্রকাশ: ১ এপ্রিল ২০১৮, ১১:২৭:৩৭

অস্ট্রেলিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশী নিহত ৩

অনলাইন ডেস্ক : অস্ট্রেলিয়ার ডারউইনে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশী নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে দু’জন নারী ও একজন পুরুষ। আহত হয়েছেন অন্য চারজন। এ সময় তারা একটি টয়োটা প্রাদো গাড়িতে ছিলেন। আহতদের নেয়া হয়েছে রয়েল ডারউইন হাসপাতালে।

শনিবার দিবাগত রাতে সেখানে উপস্থিত হয়েছিলেন চার্লস ডারউইন ইউনিভার্সিটির বাংলাদেশী স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল হাসান। তিনি বলেছেন, যারা নিহত হয়েছেন তারা সবাই ছিলেন বিবাহিত। তাদের বয়স ৩০ বছরেরও কম। ভয়াবহ ওই দুর্ঘটনা ঘটে ডারউইনের কাকাদু এলাকায়। এতে সেখানে বাংলাদেশী সম্প্রদায়ের মধ্যে শোক বিরাজ করছে। এর মাত্র কয়েক মাত আগে লিচটফিল্ড ন্যাশনাল পার্কে এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন কয়েকজন। এ খবর দিয়েছে রেডিও অস্ট্রেলিয়া।

এতে বলা হয়েছে সর্বশেষ ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে অনভিজ্ঞ গাড়িচালকের কারণে। পুলিশি রিপোর্টেও তাই বলা হচ্ছে। স্থানীয় সময় শনিবার রাত সাড়ে বারটার সময় কাকাদু মহাসড়কে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানটি কুইন্দা লজ থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে। দুর্ঘটনায় আহত চার বাংলাদেশীর অবস্থা স্থিতিশীল। তারা বর্তমানে রয়েছেন রয়েল ডারউইন হাসপাতালে।

রোববার সকালে এ নিয়ে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন, পুলিশের ভারপ্রাপ্ত সহকারী কমিশনার কমান্ডার টনি ফুলার। তিনি বলেছেন, জাবিরু থেকে কুলিন্ডায় যাচ্ছিলেন ওইসব বাংলাদেশী। তারা টয়োটা প্রাদোতে ছিলেন। গাড়িটি চালাচ্ছিলেন ২৯ বছর বয়সী একজন চালক। চলতে চলতে তাদের সামনে অকস্মাৎ প্রচ- বাঁকানো একটি পথ চলে আসে। সেখানে চালক আর নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেন নি। এতে গাড়ি থেকে একজন ছিটকে পড়েন। ফলে তারা সিটবেল্ট পরা ছিলেন বলে মনে হয় না। পুলিশ বলেছে, এ সময় গাড়ির চালক বা আরোহীরা এলকোহলে আসক্ত ছিলেন এমনটাও মনে হয় না। তবে গাড়ির গতি হতে পারে এই দুর্ঘটনার কারণ। হতে পারে গাড়ির চালক ছিলেন অনভিজ্ঞ। তিনি হয়তো ছোটখাট গাড়ি চালাতেন শহরে। তবে এ নিয়ে তদন্ত চলছে।

উল্লেখ্য, ডারউইনে বসবাস রয়েছে প্রায় আড়াইশ বাংলাদেশীর। মাহমুদুল হাসান বলেছেন, এমন মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছে স্থানীয় সম্প্রদায়। এমন প্রয়োজনের সময়, কষ্টের সময় সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশী সম্প্রদায় এক হয়ে যান। প্রয়োজনের সময় আমরা এক হয়ে যাই।

আজ রোববার ওই হাসপাতালে আবারো জড়ো হওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশী সম্প্রদায়ের। তারা বন্ধুদের সহায়তায় যতদূর সম্ভব এগিয়ে আসতে প্রস্তুত। মাহমুদুল সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন নিহত ও আহতদের জন্য।