প্রকাশ: ৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১১:১২:৪১

ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় সারাদেশ

অনলাইন ডেস্ক :
দেশ কাঁপছে ঘন কুয়াশায় ও শীতের আদ্রতায়। হিমেল হাওয়া ও তীব্র শৈত্যপ্রবাহে বেশি কাঁপছে দেশের উত্তরের জনপদ। দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলা নীলফামারীর তাপমাত্রা তিন ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে, দেশের ইতিহাসে যা সর্বনিম্ন। এছাড়া পাশের জেলা দিনাজপুরের তাপমাত্রাও তিন ডিগ্রি ছুঁইছুঁই। সেখানে আজ সকালে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে তিন দশমিক দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকা আবহাওয়া কার্যালয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা ইউএনবি এক প্রতিবেদনে এই তথ্য দিয়েছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, নীলফামারির ডিমলা উপজেলায় সোমবার সকালে তিন ডিগ্রি সেলসিয়ান তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

স্বাধীনতার আগে ১৯৬৮ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল। এরপর আরও কোনদিন তাপমাত্রা এত নিচে নামেনি বলে জানা গেছে।

তীব্র শীতে তিস্তা ও নদী অববাহিকার লোকজন শীতবস্ত্রের অভাবে দুর্ভোগে পড়েছেন। সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় সামান্য। ফলে লোকজন খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছে।

গতকাল রবিবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল। আজ এই জেলায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে তিন দশমিক দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস।

দিনাজপুর নীলফামারী ছাড়াও রংপুর ও রাজশাহী বিভাগে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। এই দুই বিভাগের বেশিরভাগ জেলায় তাপমাত্রা সাত ডিগ্রির নিচে নেমে এসেছে। সকালে রংপুরে একটু রোদের দেখা মিললেও অন্যান্য জেলাগুলো কুয়াশায় ঢেকে আছে।

এদিকে তাপমাত্রা হঠাৎ করে কমে যাওয়ায় মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন। বিশেষ করে খেটে খাওয়া ও ছিন্নমূল মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন। ঠাণ্ডা নিবারণ করতে অনেককে খড়কুটো জ্বালিয়ে রাখতে দেখা গেছে।

আবহাওয়া অধিপ্তরর সূত্রে জানা যায়, রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ দশমিক ৮ ও চট্টগ্রাম বিভাগে সর্বনিম্ন ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। দেশের সব কটি বিভাগেই স্থানভেদে তীব্র, মাঝারি ও মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে।