প্রকাশ: ৪ নভেম্বর ২০১৭, ১১:০১:৩৫

ফের রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ বাড়ছে

কক্সবাজার : মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গারা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ প্রতিদিনই স্রোতের গতিতে বাড়ছে। কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট অনুযায়ী, ২৫ আগস্টের পর থেকে শুক্রবার (০৩ নভেম্বর) পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ৬ লাখ ২০ হাজার। প্রতিদিন অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

এদিকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এতিম শিশুদের সংখ্যাও। প্রায় প্রতিদিনই রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নতুন এতিম শিশুর সন্ধান মিলছে।

শুক্রবার পর্যন্ত সমাজসেবা অধিদপ্তর বিভিন্ন অস্থায়ী ক্যাম্পে অনুসন্ধান চালিয়ে ৩০ হাজার ৩৩৯ জন এতিম শিশু শনাক্ত করেছে।

প্রথমবারের মতো ১৭ অক্টোবর কক্সবাজার সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত রোহিঙ্গা নাগরিকদের মানবিক সহায়তা বিষয়ক আন্তঃসংস্থা সমন্বয় সভায় শনাক্ত হওয়া রোহিঙ্গা এতিম শিশুর সংখ্যা ১৬ হাজার ৮৩৩ জন বলে জানিয়েছিলেন সমাজসেবা অফিসার মো. এমরান খান। এরপর গত ১৭ দিনে আরও ১৩ হাজার ৫০৬ জন এতিম শিশুর সন্ধান পাওয়া গেল।

এদিকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭টি ক্যাম্পের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের কাজও এগিয়ে চলছে। নিবন্ধনের সংখ্যা ছুটছে চার লাখের ঘরে।

শুক্রবার পর্যন্ত কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয় কেন্দ্রে রোহিঙ্গাদের মধ্যে ৩ লাখ ৯৫ হাজার ৭৩৪ জনের বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে তথ্য অধিদপ্তর (পিআইডি)।

সংস্থাটি আরও জানায়, এদিন কুতুপালং-১ ক্যাম্পে ১ হাজার ১৭৫ জন পুরুষ, ৭৫৫ জন নারী মিলে ১ হাজার ৯৩০ জন, কুতুপালং-২ ক্যাম্পে ৮২১ জন পুরুষ, ৭৫৫ জন নারী মিলে ১ হাজার ৫৭৬ জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ৪২৯ জন পুরুষ, ৪৮৩ জন নারী মিলে ৯১২ জন, থাইংখালী-১ ক্যাম্পে ৯৭৭ জন পুরুষ, ৮২৬ জন নারী মিলে ১ হাজার ৮৩ জন, থাইংখালী-২ ক্যাম্পে ৮৮৮ জন পুরুষ, ৩৮৪ জন নারী মিলে ১ হাজার ২৭২ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ১৬০ জন পুরুষ, ১ হাজার ২০১ জন নারী মিলে ২ হাজার ৩৬১ জন, লেদা ক্যাম্পে ১৩৯ জন পুরুষ, ৮৩ জন নারী মিলে ২২২ জন অর্থাৎ পুরোদিনে ৭টি কেন্দ্রে মোট ১০ হাজার ৭৬ জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে।