প্রকাশ: ৯ জুন ২০১৮, ২২:৪৭:০৩

হঠাৎ ভারতে খসরুসহ তিন নেতা

অনলাইন ডেস্ক : ভারতের নীতি-নির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনার নিমিত্তে বিএনপির তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল এখন ভারতে অবস্থান করছেন। এরই মধ্যে তারা দেশটির নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতেই মূলত বিএনপির প্রতিনিধি দলের এ ভারত সফর বলে জানা গেছে।

তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। অপর দুই সদস্য হলেন: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়ার মিন্টু এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক হুমায়ুন কবির।

গত দুই দিনে তারা আলোচনা করেছেন অবজারভার রিসার্স ফাউন্ডেশন-ওআরএফ, ভিবেকানন্দ ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশন-ভিআইএফ এবং রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন-আরজিএফ এর সঙ্গে।

আলোচানায় তারা গণতন্ত্র, নির্বাচনী আইনকানুন সম্পর্কে জানার চেষ্টা করেছেন জানিয়ে বাংলাদেশের একটি ইংরেজি দৈনিককে শুক্রবার টেলিফোনে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘ভারতীয় নীতিনির্ধারকরা বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও সুশাসনের অভাব দেখা দিয়েছে এ বিষয়ে অবগত রয়েছেন। তারা আমাদের কাছে এগুলো জানতে চাইলে আমরা সংক্ষিপ্তভাবে বলেছি।’

খসরু জানান, তারা কয়েকদিন আগে ভারতে গেছেন এবং আগামীকাল ফিরবেন। তবে কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তারা বৈঠক করেননি বলেও জানান খসরু।

অবজারভার রিসার্স ফাউন্ডেশন-ওআরএফ ভারতের অন্যতম একটি নীতিনির্ধারক সংস্থা। দেশটির সাবেক কূটনীতিক, আমলা, অর্থনীতিবিদ এবং বিশ্লেষক এই সংস্থার সদস্য।

পিনাক রঞ্চন চক্রবর্তী এ সংস্থার বিশিষ্ট ফেলো। তিনি বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার হিসেবে কাজ করেছেন। বিএনপির সঙ্গে আলোচনায় তিনি উপস্থিত ছিলেন বলে দলীয় সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ওই ইংরেজি দৈনিক।

ওআরএফ এর সিনিয়র ফেলো জয়ীতা ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার আমাদের কার্যালয়ে বিএনপির তিন সদস্যের দলের সঙ্গে বিশিষ্ট এবং সিনিয়র ফেলোদের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে। ঘন্টাব্যাপী এ বৈঠক হয়।

বিএনপির একটু সূত্র জানিয়েছে, প্রতিনিধি দলটি আসন্ন জাতীয় নির্বাচন, গণতন্ত্র এবং বাংলাদেশের আইনের শাসন নিয়ে আলোচনা করেছে।

শুক্রবার সকালে নয়াদিল্লিভিত্তিক এবং জাতীয় স্বয়ং সেবক সংঘের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে দুই ঘন্টাব্যাপী বৈঠক করেছে প্রতিনিধি দলটি। একথা জানিয়েছেন প্রতিনিধিদলের প্রধান খসরু।

ভিআইএফ এর নির্বাহী সহযোগী কামাল সিং জানিয়েছেন, বাংলাদেশি প্রতিনিধিদল জনমতবিষয়ক নীতিনির্ধারকদের কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তবে বৈঠক সম্পর্কে বিস্তারিত জানাননি তিনি।

এছাড়া প্রতিনিধি দলটি নীতি প্রাসঙ্গিক অধ্যয়নের রিসার্সকারী সংস্থা ডিফেন্স স্টাডিজ এবং বিশ্লেষণ ইনস্টিটিউট-আইডিএসএর সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

ভারতীয় পত্রিকা দ্য হিন্দু শুক্রবার একটি প্রতিবেদনে বলেছে, ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিএনপির নেতারা নরেন্দ্র মোদি সরকারকে একটি স্বাধীন ও সুষ্ঠু প্রক্রিয়া সমর্থন করার আহ্বান জানিয়েছেন।

দ্য হিন্দুকে আমীর খসরু বলেছেন, ‘বাংলাদেশি মানুষ তাদের বড় প্রতিবেশীকে এই ধরনের গঠনমূলক ভূমিকায় দেখতে চায়।’

‘যদি গণতন্ত্র বাংলাদেশে শক্তিশালী হয়। তাহলে যে কেউ জয়ী হবে, এটি ভারতের জন্যও একটি জয়।’

যোগাযোগ করা হলে শুক্রবার রাতে হুমায়ুন কবির ওই ইংরেজি দৈনিককে বলেন, তাদের সঙ্গে ভারতের বিভিন্ন নীতিনির্ধারক সংস্থার আলোচনা হয়েছে। তাদেরকে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা জানিয়েছেন তারা। এছাড়া মাদকবিরোধী অভিযানে মানুষ হত্যার কথাও তুলে ধরা হয়েছে।

এছাড়া ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কের ব্যাপারে এবং দলের ভবিষ্যতের নীতিমালা নিয়ে মত বিনিময় করা হয়েছে বলেও জানান হুমায়ুন কবির।

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে লন্ডনে বিএনপি কার্যনির্বাহী চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পরামর্শে প্রতিনিধিদল ভারতে যান। দেশটির সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়নে তারেক রহমান আগ্রহী যার কারণেই প্রতিনিধি দল ভারতে গিয়েছেন।

আসন্ন নির্বাচনে ভারতের কাছ থেকে বিএনপি কেমন সাহায্য আশা করে? এমন প্রশ্নের জবাবে হুমায়ুন কবির বলেন, ‘আমরা ভারতের কাছ থেকে কোনও সাহায্য চাই না। যাই হোক, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে ভারতের প্রতিবেশী দেশে গণতন্ত্র এবং মানবতার সর্বজনীন মূল্য সমর্থন করা উচিত।’