প্রকাশ: ২১ এপ্রিল ২০১৮, ২২:০৬:১৩

ছাত্রলীগ নেতা রনির পক্ষে নায়িকার অঞ্জনার স্ট্যাটাস

সিটিজিসান, অনলাইন ডেস্ক : একের পর এক ‘থাপ্পর’ ঘটনায় আলোচিত ছাত্রনেতা চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি এখনো গ্রেফতার হননি। প্রকাশ্যে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের সামনেই ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি।

অন্যদিকে, বাড়ি ছেড়ে প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন রনির হাতে নির্যাতিত ইউনিএইড নামে একটি কোচিং সেন্টারের পরিচালক রাশেদ মিয়া। এরই মধ্যে বিতর্কিত এই ‘থাপ্পর’ নায়কের পক্ষে স্ট্যাটাস দিয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী চিত্রনায়িকা অঞ্জনা।

শনিবার ফেসবুক ওয়ালে কোচিং মালিকের কাছে রনির চাদা দাবির বিষয়টি শতভাগ মিথ্যে উল্লেখ করে বিকালে একটি স্ট্যাটাস দেন এই নায়িকা।

গ্রেফতার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়ানো রনির পক্ষে সেখানে তার অবস্থান ব্যাখ্যাও করেছেন। তিনি লিখেছেন- ‘রনি যদি চাঁদাবাজ হতো তাহলে তো রাশেদের মতো মানুষের কাছে চাঁদা দাবি করতো না। কতো শিল্পপতি আছে তাদের কাছে না গিয়ে রাশেদের কাছে চাঁদা আনতে গিয়ে গায়ে হাত তুলেছে কেমন হাস্যকর ব্যাপার তাই না একটু ভাবে দেখুন তো এইটা যে ১০০% মিথ্যা একটি ষরযন্ত্র তাতো এমনিতেই বোঝা যায়।’

রনিকে ‘পরিচ্ছন্ন ছাত্রনেতা’ উল্লেখ করে অঞ্জনা লিখেছেন- ‘রনি একজন মেধাবী পরিচ্ছন্ন ছাত্রনেতা, আমি হলপ করে বলতে পারি ওই কক্ষের যে ঘটনা নিয়ে কুচক্রী মহল রনির বিরুদ্ধে মিথ্যা ষড়যন্ত্র করছে তা অবান্তর। হ্যাঁ রনি রাশেদ এর উপরে হাত তুলেছে তার কারণ রাশেদ রনির পাওনা টাকা না দিয়ে অনেকদিন যাবত ঘুরাচ্ছিলো আর পাওনা টাকা যদি অসংখ্য ডেইট দিয়ে কেও না দেয় তাহলে মাথা গরম হওয়াটাই স্বাভাবিক আর রনি যা করেছে অবশ্যই রনির জায়গায় আমি থাকলে আমি ও নিশ্চিত তাই করতাম রনি যা করেছে অবশ্যই তা কোনো প্রকার অপরাধ করেনি এইটা আমার অভিমত।’

একজন সেলিব্রেটি হয়ে বিতর্কিত এই ছাত্রনেতার পক্ষে তার অবস্থানের কারণ জানতে চাইলে মুঠোফোনে অঞ্জনা জানিয়েছেন- ‘আমি নায়িকা হিসেবে নই একজন রাজনীতিক হিসেবে পুরো ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে স্ট্যাটাস দিয়েছি। আমি মনে করেছি এটা রনির বিপক্ষে ষড়যন্ত্রের অংশ। রাজনীতি করি হিসেবে তাই নৈতিক দায়িত্ব নিয়েই তার পক্ষ নিয়েছি। যদি অন্যায় প্রমাণিত হয় তবে অবশ্যই তাকেও শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। যতোক্ষণ সেটা না হচ্ছে ততোক্ষণ তাকে নিয়ে অপপ্রচার অনৈতিক।’

সম্প্রতি রনির হাতে নির্যাতনের ঘটনাটি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় চট্টগ্রামসহ সারা দেশে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। চাঁদাবাজির অভিযোগে রনির বিরুদ্ধে রাশেদের মামলা এবং ঘটনার সত্যতা পাওয়ার পরপরই তাকে নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এর আগে গত ৩১ মার্চ চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজ ছাত্রদের পক্ষে আন্দোলনের একপর্যায়ে অধ্যক্ষ জাহেদ খানকে মারধর করে সমালোচিত হন রনি।

এ ঘটনায় রনিসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা হয় মহানগরীর চকবাজার থানায়। এ ছাড়া ২০১৬ সালে চট্টগ্রামের হাটহাজারীর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অস্ত্রসহ গ্রেফতার হন নুরুল আজিম রনি। সে সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে দুই বছরের সাজা দেন। পরে তিনি জামিনে মুক্ত হন।