মিরসরাইয়ে জঙ্গি আস্তানা থেকে দুই লাশসহ গ্রেনেড উদ্ধার

মিরসরাই করেসপন্ডেন্ট | সিটিজিসান.কম

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে অভিযান চালানো জেএমবির আস্তানা থেকে দুই জঙ্গির লাশ উদ্ধার এবং কয়েকটি অবিস্ফোরিত গ্রেনেড উদ্ধার করেছে। এছাড়া বোমা বা বিস্ফোরক দ্রব্য কোথাও ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা আছে কিনা দেখছে। বাড়ির মালিক ও কেয়ারটেকারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এই তথ্য জানান র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান।

এর আগে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা থেকে মিরসরাই গিয়ে অভিযান শুরু করে র‌্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট। বাড়ির মালিক, কেয়ারটেকারসহ কয়েকজনকে র‍্যাব নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে বলেও জানিয়েছেন ফেনী ক্যাম্প অধিনায়ক শাফায়াত জামিল ফাহিম।

এর আগে ভোর থেকেই উপজেলার জোরারগঞ্জের উত্তর সোনাপাহাড় মইনউদ্দিন চৌধুরী পেট্রোল পাম্পের সামনে মাজহারুল ইসলাম চৌধুরীর মালিকানাধীন ‘চৌধুরী ম্যানশন’ ঘিরে রাখে র‌্যাব ৭ এর কয়েকটি ইউনিট। এই বাড়িটিতে গড়ে ওঠা জঙ্গি আস্তানায় গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে থেকে অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। অভিযান চলাকালে দুপক্ষের মধ্যে গোলাগুলি ও বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটেছে।

র‌্যাব জানায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টা থেকে চৌধুরী ম্যানশন নামের সেমি পাকা ওই বাড়ি ঘিরে রাখা হয়েছিল। এরপর র‌্যাবকে লক্ষ্য করে বাড়ির ভেতর থেকে গুলি ছুঁড়লে র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে উভয়ের মধ্যে দফায় দফায় গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ভোর পৌনে ৪টা নাগাদ র‌্যাবের তরফ থেকে ভেতরে থাকা জঙ্গি সদস্যদের আত্মসমর্পন করতে বলা হয়। এ সময় ঘরে থাকা জঙ্গি সদস্যরা দুটি শক্তিশালী বোমা বিস্ফোরণ ঘটনায়। এর পর ঘরের ভেতর আর কোনো সাড়া শব্দ মেলেনি। এরপর কিছুক্ষণ সেখানে অভিযান বন্ধ রাখে র‌্যাব।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বলেন, চট্টগ্রামে বড় ধরনের নাশকতা করতে জঙ্গিরা সংগঠিত হচ্ছে এমন গোয়েন্দা খবরের ভিত্তিতে র‌্যাব তৎপর ছিল। মিরসরাই উপজেলার সোনাপাহাড়ার এলাকার চৌধুরী ম্যানশন এ জঙ্গিরা অবস্থান করছে এমন খবর পেয়ে রাতেই বাড়িটি ঘিরে অভিযান শুরু করে র‌্যাব-৭। র‍্যাব যাদের জঙ্গি বলে সন্দেহ করছে তারা এ বাড়িতে গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে অবস্থান করছেন বলে জানান তিনি।

মুফতি মাহমুদ খান জানান, চৌধুরী ম্যানশন নামের ওই বাড়ির মালিক মাজহারুল হক নামের এক ব্যক্তি। তিনি উপজেলার ইছাখালী ইউনিয়ন এলাকার বাসিন্দা। বছর খানেক আগে জমি কিনে সোনাপাহাড় এলাকার বাড়িটি তৈরি করে ভাড়া দিয়ে দেওয়া হয়।

সিএস/সিএম