বাঁশখালীতে যৌতুকের বলি গৃহবধু

করেসপন্ডেন্ট | সিটিজিসান.কম

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের কাতেবীপাড়া এলাকায় বুধবার (১০ অক্টোবর) রাতে যৌতুকের দাবিতে কামরুন্নাহার (২৬) নামের এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যার পর ফাঁসিতে ঝুলিয়ে আত্মহত্যা বলে প্রচারের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কামরুন্নাহারের ভাই আবুল কালাম আজাদ আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, তার বোন আত্নহত্যা করেনি। তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে তার শ্বশুর বাড়ির পরিবার। লাশ ময়নাতদন্ত শেষে শেখেরখীল গ্রামে দাফন করা হয়েছে। এদিকে ঘটনার পর পরই স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন সবাই পলাতক রয়েছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালে শেখেরখীল ইউনিয়নের শেখেরখীল গ্রামের হাজী আলী মিয়ার কন্যা কামরুন্নাহারের সাথে ছনুয়া ইউনিয়নের কাতেবীপাড়ার মৃত আব্দুল মজিদের পুত্র মো. ইলিয়াছের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে ইলিয়াছ বিভিন্ন সময় যৌতুকের বাহনায় কামরুন্নাহারকে শাররীক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো। এ নিয়ে সামাজিকভাবে বেশ কয়েকবার শালিসও বসে। তাদের সংসারে আরমান (৬) ও আবিদ (৩) নামের দুইটি পুত্রসন্তান আছে। এছাড়া কামরুন্নাহার ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

ইলিয়াছ কিছুদিন ধরে একটি অটোরিকশা কেনার জন্য কামরুন্নাহারের ভাই আবুল কালাম আজাদের কাছ থেকে দুই লাখ টাকা দাবি করে আসছিল। ওই টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় স্বামী ইলিয়াছ বুধবার রাতে বেধড়ক পেটায় কামরুন্নাহারকে। এতে কামরুন্নাহারের মৃত্যু হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হানিফ বলেন, কামরুন্নাহারের লাশ আমি খাটের উপর থেকে উদ্ধার করেছি। লাশ ঝুলন্ত ছিল না। গলায় ও শরীরে দাগ রয়েছে।

এবিষয়ে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল হোসেন বলেন, অপমৃত্যু মামলা শেষে লাশ ময়না তদন্ত নেয়া হয়েছে। সুরতহাল রির্পোটের ওপর ভিত্তি করে মামলা নেয়া হবে।

সিএস/সিএম

Leave a Reply