জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে সেনা কর্মকর্তার জিডি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | সিটিজিসান.কম

ঢাকা: গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর নামে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছে সেনা সদর।

আজ সোমবার (১৫ অক্টোবর) ক্যান্টনমেন্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন হাওলাদার এ তথ্য জানিয়েছেন।পরে এটি তদন্তের জন্য মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

গত ৯ অক্টোবর রাতে সময় টিভির এক অনুষ্ঠানে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আওয়ামী লীগের সমাবেশে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট হামলায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেডের উৎসের বিষয়ে বলতে গিয়ে দাবি করেন, আজিজ আহমেদ চট্টগ্রামের জিওসি থাকাকালে বেশ কিছু অস্ত্র হারিয়ে গিয়েছিল। এরপর তিনি কোর্ট মার্শালের মুখোমুখি হয়েছেন।

জাফরুল্লাহ চৌধুরীর এই বক্তব্য সেনা সদর দফতরের নজরে আসলে সেখান থেকে আজিজ আহমেদ যে কখনো চট্টগ্রামের জিওসি ছিলেন না এবং তার চাকরি জীবনে তিনি কখনো কোর্ট মার্শালের মুখোমুখি হননি এমন প্রতিবাদলিপিতে জানানো হয়।

কবির হোসেন হাওলাদার জানান, গত শুক্রবার রাতে সেনা সদরের মেজর এম রকিবুল আলম জিডিটি (জিডি নম্বর-৪৯৮) করেন। ইতোমধ্যে জিডিটি তদন্তের জন্য মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) দক্ষিণ বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সাধারণ ডায়েরিতে বলা হয়েছে, ‘বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ সম্পর্কে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বক্তব্যটি ছিল একটি দায়িত্বজ্ঞানহীন, অসত্য বক্তব্য।

কারণ, বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ চাকরি জীবনে কখনোই চট্টগ্রামে জিওসি বা কমান্ড্যান্ট হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন না। তিনি ২০১০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১১ সালের জুন পর্যন্ত কুমিল্লায় ৩৩ আর্টিলারি ব্রিগেডের ব্রিগেড কমান্ডার, ২০১১ সালের জুন থেকে ২০১২ সালের মে পর্যন্ত ঢাকার মিরপুরে ৬ স্বতন্ত্র এডিএ ব্রিগেডের ব্রিগেড কমান্ডার এবং ২০১২ সালের মে থেকে ২০১২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কুমিল্লায় ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ওই সময়ে চট্টগ্রাম বা কুমিল্লা সেনানিবাসে কোনো সমরাস্ত্র বা গোলাবারুদ চুরি বা হারানোর কোনো ঘটনা ঘটেনি।’

সিএস/সিএম