সৎবাবার হাতে পাশবিক নির্যাতনের শিকার কন্যা অতঃপর আটক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট। সিটিজিসান.কম

চট্টগ্রাম: মহানগরের ডবলমুরিং থানার ঝর্ণাপাড়া এলাকায় ১২ বছরের এক শিশুকন্যাকে পাশবিক নির্যাতনের অভিযোগে সৎবাবাকে স্থানীয়রা আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে। গতকাল সোমবার দিনগত রাত ১১টার দিকে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তার নাম সাগর চৌধুরী।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্র জানায়, তিনমাস ধরে ঝর্ণাপাড়া এলাকার শামসুলের ভাড়া ঘরে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করছেন মাছ ব্যবসায়ী সাগর চৌধরী। সঙ্গে থাকেন স্ত্রীর আগের ঘরের ১২ বছরের এক শিশুকন্যা।

জানা যায়, সৎবাবা সাগর প্রায়সময় মায়ের অনুপস্থিতিতে ওই শিশুর শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিত। তার সঙ্গে খারাপ কাজে লিপ্ত হতে চাইত। তাতে রাজি না হলে কিছুদিন আগে তার পায়ে সিগারেটের ছ্যাকা দেয় সৎবাবা। বিষয়টি মাকে জানালে তিনি কোনো কর্ণপাত করেন না। বরং এড়িয়ে এড়িয়ে চলতেন। ফলে শিশুটি অসহায় বোধ করত।

সোমবার রাত ৯টার দিকে সৎবাবা সাগর শিশুটিকে পাশবিক নির্যাতন করতে চাইলে স্থানীয় মুরাদের অফিসে গিয়ে শিশুটি আশ্রয় নেয় এবং পুরো ঘটনা খুলে বলে।

এরপর স্থানীয়রা সাগর এবং তার স্ত্রীকে মুরাদের অফিসে আটকে রেখে পুলিশ খবর দেয়। রাত ১১টার দিকে পুলিশ গিয়ে সাগরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় স্ত্রী এবং ভিকটিমকেও থানায় আনা হয়।

সৎবাবার পাশবিক নির্যাতন সংক্রান্ত স্থানীয়দের ধারণকৃত এক মিনিটের একটি ভিডিও ক্লিপ দিয়েছে। তাতে শিশুটি তার সৎবাবার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টার অভিযোগ আনে। অনৈতিক আবদার পূরণ না করায় শিশুটির পায়ে সিগারেটের আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার কথাও বলে শিশুটি। এঘটনা মাকে জানালে উল্টো গালাগাল শুনতে হত বলে জানায় শিশুটি।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ডবলমুরিং থানার সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) সোহরাব হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সোমবার রাত ১টার দিকে একুশে পত্রিকাকে জানান, মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা তার সৎবাবা ও মাকে থানায় নিয়ে এসেছি। মেয়েটিও আমার হেফাজতে রয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। এরপর আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিএস/সিএম

Leave a Reply